বুধবার, ২৪ Jul ২০২৪, ০৩:২৩ পূর্বাহ্ন

জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ট্রেনের ছাঁদে ঘরমুখী মানুষ

ট্রেনের ছাঁদে গন্তব্যে ফিরছেন সাধারণ মানুষ

স্টাফ রিপোর্টার:: ঈদযাত্রার শেষ মুহূর্তে মানুষের ঢল নেমেছে কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনে। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ট্রেনের ছাঁদে গন্তব্যে ফিরছেন সাধারণ মানুষ। ঈদে পরিবারের সঙ্গে আনন্দ ভাগাভাগি করে নিতে কর্মব্যস্ত নগরী ছেড়ে পরিবারের কাছে ফিরছে তারা।

রোববার (১৬ জুন) সকালে রাজধানীর কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন ঘুরে এমন চিত্র দেখা গেছে।

এদিকে আজ ট্রেনে ঈদ যাত্রার পঞ্চম দিন। বিগত দিনগুলোতে ট্রেন যাত্রায় গন্তব্যগামী মানুষের এমন চিত্র না থাকলেও শেষ মুহূর্তে গন্তব্যে ফিরতে ঢল নেমেছে সাধারণ মানুষের।

এদিন সকালে রাজধানীর কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, রোববার সকাল হতেই ঢল নামতে শুরু করে গন্তব্যগামী সাধারণ মানুষের। এছাড়া ট্রেন যাত্রার প্রথম দিন শিডিউল বিপর্যয় থাকলেও পরবর্তী দিনগুলোতে কোনো শিডিউল বিপর্যয় দেখা যায়নি। তবে ঈদযাত্রার শেষ দিনে সকাল থেকে ছেড়ে যাওয়া ট্রেনগুলো কিছুটা দেরিতে ছেড়ে যেতে দেখা গেছে। প্রতিটি ট্রেন ১০ থেকে ১৫ মিনিট দেরিতে গন্তব্যের উদ্দেশে ছেড়ে যেতে দেখা গেছে। তবে এই স্বল্প সময় শিডিউল বিপর্যয়কে যাত্রীর চাপ বৃদ্ধি পাওয়াকে কারণ হিসেবে দেখছে কর্তৃপক্ষ।

এদিকে প্ল্যাটফর্মে যেন টিকিটবিহীন ব্যক্তি প্রবেশ করতে না পারে সেজন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। প্লাটফর্ম এলাকায় প্রবেশের মুখে ‍তিন স্তরের নিরাপত্তা বেষ্টনী পার হয়ে যাত্রীদের স্টেশনে প্রবেশ করতে হচ্ছে।

দেখা গেছে, স্টেশনের প্রবেশদ্বারে র‌্যাব, পুলিশ এবং রেলওয়ে নিরাপত্তা বাহিনী (আরএনবি) কন্ট্রোলরুম স্থাপন করেছে। প্লাটফর্মে প্রবেশের মুখে ট্রাভেলিং টিকিট এক্সামিনারদের (টিটিই) দেখা গেছে যাত্রীদের টিকিট চেক করতে, তবে এনআইডি মিলিয়ে দেখতে দেখা যায়নি এবার। যাদের টিকিট নেই, তারা ১-৬ নাম্বার কাউন্টারে গিয়ে দাঁড়িয়ে তাদেরকে টিকিট সংগ্রহ করতে দেখা গেছে। তারপর যাত্রীরা পরিচ্ছন্ন একটি পরিবেশের মধ্য দিয়ে প্ল্যাটফর্ম হয়ে নির্দিষ্ট গন্তব্যের ট্রেনে উঠছেন।

স্টেশন মাস্টার আনোয়ার হোসেন বলেন, শেষ মুহূর্তে যে যেভাবে পারছে বাড়িতে যাওয়ার চেষ্টা করছে। যাত্রীর চাপ বাড়ার কারণে ট্রেন ছাড়তে কিছুটা লেট হচ্ছে।

ঝুঁকি নিয়ে এভাবে ট্রেনের ছাদে যাওয়ার কারণ জানতে চাইলে দেওয়ানগঞ্জ ঈদ স্পেশাল ট্রেনের যাত্রী রফিকুল বলেন, অনেক চেষ্টা করেও টিকিট পাইনি। কিন্তু ঈদ পরিবারের সঙ্গে উপভোগ করতে বাড়িতে যেতে হবে। তাই বাধ্য হয়েই ট্রেনের ছাদে উঠেছি।

অন্য এক যাত্রী মমিন শেখ বলেন, গতকাল অফিস করেছি। অফিস শেষ করে টিকিট না পাওয়ার কারণে যেতে পারিনি। ভেবেছিলাম আজ যাত্রীর চাপ কম থাকবে টিকিট পাবো বাড়ি যেতে পারবো। কিন্তু স্টেশনে এসে টিকিট না পেয়ে বাধ্য হয়ে ট্রেনের ছাদে উঠেছি।

এদিকে এবার ঈদে ভোগান্তিহীন ট্রেন যাত্রায় গোল্ডেন প্লাস পাওয়ার আশা ব্যক্ত করেছেন রেলমন্ত্রী জিল্লুল হাকিম।

গত বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) বিকেলে কমলাপুর রেলস্টেশন পরিদর্শনে গিয়ে এই আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

জিল্লুল হাকিম বলেন, গত ঈদে রেলের সার্ভিস ভালো হয়েছে। এতে করে অনেকেই বলেছে আমি প্রথম পরীক্ষায় নাকি গোল্ডেন প্লাস পেয়েছি। আমাদের সীমিত সামর্থের মধ্যে নিরাপদে ঈদুল আজহার যাত্রা এবারও ভালো করতে চাই। এবারও গোল্ডেন প্লাস পাবো আশা করি। সব প্রস্তুতি আছে। ঢাকা থেকে ৬৪টি ট্রেন ছাড়ে, দুই একটা ট্রেন বাদে ৩০টা ট্রেন ইন টাইম যাত্রা করেছে। সবাইকে অনুরোধ করব এবারের যাত্রা যেন গতবারের চেয়ে ভালো হয়। আপনাদের জন্য রেল কাজ করে যাচ্ছে।

এক প্রশ্নের জবাবে রেলমন্ত্রী বলেন, পুরাতন কোচ রাতারাতি নতুন করতে পারব না। ফ্যান ঠিক করা হচ্ছে। আবার অনেক সময় যাত্রী বেশি হওয়ায় অতিরিক্ত কোচ লাগাতে হয় এতে সময় বেশি লাগে। কিছু ট্রেনে লম্বা দূরত্বে ক্রসিংয়ে সময় বেশি লাগে। আগামী ঈদ থেকে আর কোনো অভিযোগ থাকবে না।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2024  Ekusharkantho.com
Technical Helped by Titans It Solution