বুধবার, ২৪ Jul ২০২৪, ০৩:২১ পূর্বাহ্ন

আবাসিকে গ্যাসের দাম বাড়ছে!

আবাসিকে গ্যাসের দাম বাড়ছে

অনলাইন প্রিতেবদক:: মিটারবিহীন আবাসিক গ্রাহকের জন্য গ্যাসের বরাদ্দ বাড়ানোর আবেদন বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনের সভায় তোলার সিদ্ধান্ত হয়েছে। ১ বছর আগে করা ওই আবেদনের বিষয়ে কমিশন দ্বিধাবিভক্ত রয়েছে এমন তথ্য দিচ্ছেন জ্বালানি সংশ্লিষ্টরা।

এদিকে যাচাই-বাছাই কমিটি তাদের রিপোর্টে বলেছে, এ দফা গ্যাসের বরাদ্দ কিংবা পরিমাণ বাড়লে বেড়ে যাবে গ্যাসের দামও। তারা বলছে, গ্যাসের পরিমাণ বাড়িয়ে দিলে দাম পুনঃনির্ধারণ করতে হবে। তবে বিকল্প প্রস্তাবে বলা হয়েছে, গ্যাসের দর কমিয়ে দিয়ে ভলিয়ম বাড়াতে হবে।

বর্তমানে মিটারবিহীন আবাসিক গ্রাহকদের কাছ থেকে একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ ব্যবহার ধরে গ্যাসের বিল আদায় করা হয়। গ্রাহক ব্যবহার করুক, কিংবা না করুক অথবা বেশি ব্যবহার করুক কিংবা কম, একটি নির্ধারিত অংকের বিলই তাদের দিতে হয়। কিন্তু তিতাস গ্যাস বিদ্যমান এক চুলাবিশিষ্ট ইউনিটে ৫৫ ঘনমিটার (৯৯০ টাকা) বরাদ্দ থেকে বাড়িয়ে ৭৬.৬৫ ঘনমিটার এবং দুই চুলাবিশিষ্ট ইউনিটে ৬০ ঘনমিটার (১০৮০ টাকা) থেকে বাড়িয়ে ৮৮.৪৪ ঘনমিটার বরাদ্দ করার আবেদন দিয়েছে। বলা হচ্ছে, বরাদ্দের পরিমাণ বেড়ে গেলে স্বাভাবিকভাবেই দামও বেড়ে যাবে।

বিইআরসি সর্বশেষ গ্যাসের দাম বৃদ্ধির আদেশ দেয় ২০২২ সালের ৫ জুন। ওই আদেশ দেওয়ার আগে মার্চে গণশুনানি গ্রহণ করে। তখন বিতরণ কোম্পানিগুলোর প্রিপেইড মিটার ব্যবহারকারি গ্রাহকদের পরিসংখ্যানে দেখা যায় গড়ে এক চুলা ৪০ এবং দুই চুলা সর্বোচ্চ ৫০ ঘনমিটার ব্যবহার করছে। প্রিপেইড গ্রাহকের ব্যবহারের পরিসংখ্যানের উপর ভিত্তি করে এক চুলা ৭৩.৪১ ঘনমিটার ও দুই চুলা ৭৭.৪১ ঘনমিটার থেকে কমিয়ে যথাক্রমে ৫৫ ও ৬০ ঘনমিটার করা হয়।

বিইআরসির সেই আদেশের ১০ মাস পর আপত্তি জানায় তিতাস। আর তিতাসের আবেদনের প্রায় ১ বছর পর কমিশনের সভায় তোলা হচ্ছে বিষয়টি।

তিতাস তার আবেদনে বলেছে, মিটারবিহীন কমবেশি ২৫ লাখ গ্রাহকের বিপরীতে কোনো সমীক্ষা বা তথ্য বিশ্লেষণ না করেই ঘনমিটারের পরিমাণ নির্ধারণ করেছে বিইআরসি। এতে কারিগরি ঝামেলা বেড়েছে এবং সরকারি লাভজনক প্রতিষ্ঠান তিতাস আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়েছে।

তবে তিতাসের এমন অভিযোগ অস্বিকার করে আসছে বিইআরসি।

কমিশনের তৎকালীন সদস্য (২০২২) মকবুল ই-এলাহী চৌধুরী বলেন, তিতাস গ্যাসের অভিযোগ সত্য নয়। তাদের যে সাড়ে ৩ লাখ প্রিপেইড মিটার ছিল সেখানে দেখা গেছে গড়ে ৪৫ ঘনমিটারের কম ব্যবহৃত হয়েছে। প্রিপেইড মিটারের বিলের তথ্য দেখলেই বুঝতে পারা যায়। বিষয়টির জন্য রকেট সায়েন্স জানা দরকার হয় না।

বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনের চেয়ারম্যান নুরুল আমিন বলেন, কার্যক্রম চলছে, বিভিন্ন মিটারের তথ্য নেওয়া হয়েছে. সেসব তথ্য যাচাই-বাছাই করতে সময় লেগেছে।

বিষয়টি কমিশনের মিটিংয়ের এজেন্ডায় আছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, এই মুহুর্তে মনে পড়ছে না।

গণশুনানির বিষয়ে ভাবা হচ্ছে কি-না, এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, বিষয়টি কমিশনে উঠলে তারপর বলা যাবে। আগেই কিছু বলা যাচ্ছে না। আর আগেই কোন মন্তব্য করা ঠিক হবে না।

তিতাস দাবি করে আসছে মিটারবিহীন গ্রাহকরা বেশি গ্যাস পুড়ছে। তবে মিটার ব্যবহারকারী গ্রাহকদের তথ্যচিত্র তা বলে না।

এখানে তিতাসের বক্তব্য হচ্ছে, মিটার ব্যবহারকারী গ্রাহক সাশ্রয়ী হচ্ছেন। গ্যাসের প্রিপেইড মিটার স্থাপন করা গেলে এই সংকট থাকে না। প্রথম দিকে গ্যাসের প্রি-পেইড মিটার স্থাপনে বেশ তোড়জোড় ছিল। এখন যতটা পারা যায় বিলম্বিত করার কৌশলী অবস্থান নিয়েছে বিতরণ কোম্পানিগুলো।

প্রথম দিকে তারা বলেছিলেন আবাসিকে অনেক বেশি গ্যাস পুড়ছে, মিটার স্থাপন করলে তাদের রাজস্ব বেড়ে যাবে। কিন্তু লালমাটিয়া (২০১৬ সালে) এলাকায় প্রথম যখন মিটার বসানো হলো তার রেজাল্ট এলো উল্টো। দেখা গেলো প্রি-পেইড মিটার ব্যবহারকারিদের বিল আসছে দেড়’শ থেকে আড়াই’শ টাকা। যাদের মিটার নেই তাদের কাছ থেকে তখন বিল আদায় করা হচ্ছিল দুই চুলা সাড়ে ৪’শ টাকা।

বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ ২০১৬ সালে জাতীয় সংসদে প্রশ্নোত্তর পর্বে বলেছিলেন, প্রি-পেইড মিটার স্থাপনের পাইলট প্রকল্পের রেজাল্ট ভালো। দুই চুলায় মাসে ৩৩ ঘনমিটার গ্যাস সাশ্রয় হচ্ছে।

বিইআরসি ২০১৮ সালে গ্যাসের দাম বৃদ্ধির আদেশে প্রি-পেইড মিটার স্থাপনের দ্রুত করার আদেশ দেয়। গ্রাহক যাতে নিজেরা মার্কেট থেকে মিটার কিনে স্থাপন করতে পারে সেই সুবিধা উন্মুক্ত করার সিদ্ধান্ত হয়। দীর্ঘ প্রতিক্ষার পর প্রণীত নীতিমালায় বলা হয়েছে গ্রাহক নিজের পছন্দমতো দোকান থেকে মিটার কিনে বিতরণ কোম্পানিতে জমা দেবেন। বিতরণ কোম্পানিগুলো পরীক্ষা করে গ্রাহকের আঙ্গিনায় স্থাপন করবে। তবে নানা মারপ্যাচ দিয়ে আটকে রাখা হয়েছে। কোম্পানিগুলো বাজারের চেয়ে কয়েকগুণ বেশি দামে মিটার কিনেই নিজেরাই স্থাপন করছে, তাও চলছে ঢিমেতালে। তারা দুই দিকে ব্যবসা করতে চায়। এক গ্রাহকের পকেট কাটা, অন্যদিকে প্রকল্পের নামে বেশিদামে মিটার কিনে ব্যক্তি বিশেষে অনৈতিক সুবিধা নেওয়া।

বিইআরসির একজন দায়িত্বশীল কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেছেন, তিতাস এখন শুধু ভলিয়ম বাড়িয়ে দেওয়ার অনুরোধ করেছে। যদিও টেকনিক্যালি এটা সম্ভব নয়। তিনি আরও বলেন, দেশে বর্তমানে ৪৪ লাখের মতো আবাসিক গ্রাহক রয়েছে। তারমধ্যে ৫ লাখের মতো প্রিপেইড মিটার ব্যবহার করেন। ৩৯ লাখ গ্রাহকের কমবেশি ২৮ ঘনমিটার হিসাবে পরিমাণ বেড়ে গেলে মাসে হয় ১০ কোটি ৯২ লাখ ঘনমিটার। এই পরিমাণ গ্যাস তারা বিক্রি দেখাতে চায়। গ্যাস কোম্পানিগুলো চুরি ঠেকাতে পারছে না। সেই চুরির গ্যাস আবাসিকের উপর দিয়ে চালিয়ে দিতে চায়। যে কারণে শুধু পরিমাণ বাড়াতে আব্দার করেছে।

অন্যদিকে, ২০২২ সালের গ্যাসের দাম বৃদ্ধির প্রজ্ঞাপনে বিইআরসি আরেকটি ঐতিহাসিক আদেশ দিয়েছে। সেখানে বলা হয়েছে বিশ্বের কোথাও গ্যাসের সিস্টেম লস ২ শতাংশের উপরে নেই। সিস্টেম লস ২ শতাংশের নিচে নামিয়ে আনতে হবে। এখানেই হিমশিম খাচ্ছে কোম্পানিগুলো। কোন কোন এলাকায় ৩০ থেকে ৪০ শতাংশ পর‌্যন্ত সিস্টেম লস রয়েছে। তারা চুরি না ঠেকিয়ে বিকল্প পথে হাটতে চাইছে। গ্যাসের পরিমাণ বৃদ্ধির প্রস্তাবের কোনই যৌক্তিকতা নেই। ওই প্রস্তাব বাছাইয়ে আটকে যাওয়ার কথা।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2024  Ekusharkantho.com
Technical Helped by Titans It Solution